শীতে সুস্থ থাকবেন যেভাবে

|

পীঠা পুলির ঋতু শীত। অনেকেরই প্রিয় ঋতু এটি। এসময়টাতে আবহাওয়ার নানা রকম রূপ দেখা যায়। কুয়াশার চাঁদরে ডাকা থাকে প্রকৃতি। যার কারণে শীতে পরিবেশের তাপমাত্রা ওঠানামার ব্যাপারটি যেন স্বাভাবিক প্রক্রিয়া মনে হয়। কিন্তু পরিবেশের বিরূপ প্রভাবই আপনার শরীরের বাসা বাধতে সাহায্য করবে। ফলে শীতে ভোগতে হয় নানা ধরনের স্বাস্থ্য সমস্যায়। কারণ তাপমাত্রার কারণে মানব দেহের স্বাভাবিক কার্যক্ষমতা বিঘ্নিত হয়। এতে বিভিন্ন রোগের ঝুঁকি বাড়ে, বিশেষ করে শিশু ও প্রবীণরা বেশি স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে পড়ে।

এ সময় জ্বর, অ্যাজমা, গা-ব্যথা, অসাড় ভাবসহ নানা ধরনের সংক্রমণ দেখা দেয়। এ ধরনের সমস্যায় চিকিৎসার নানা উপায় আছে। এগুলো যদি সহজে এড়িয়ে যাওয়া যায়, তবে কিসের অপেক্ষা?

কথায় আছে, চিকিৎসার চেয়ে প্রতিরোধ উত্তম। শীতের এ মৌসুমে কিছু খাবার খেলে ও কিছু পরামর্শ মেনে চললে সহজেই রোগব্যাধি এড়াতে পারবেন।

এছাড়া আপনি আরও নানা সমস্যায় ভুগতে পারেন। সেগুলো হলো:

গলা ব্যথা: গলা ব্যথা ভাইরাস জনিত সমস্যা। গলা ব্যথা কমাতে কুসুম গরম পানিতে লবণ দিয়ে গড়গড়া করলে অনেকটাই আরাম মিলবে।

অ্যাজমা, আলার্জির ঝুঁকি বাড়ে: শীতের বাতাসে প্রচুর ধুলাবালি, অ্যালার্জি উৎপাদনকারী উপাদান থাকে। এতে শ্বাসকষ্ট তৈরি হয়। তাই শীতে বাড়তি যত্ন হিসেবে ধুলাবালি থেকে দূরে থাকুন। বাইরে বের হলে মুখে মাস্ক পরুন এবং চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে প্রয়োজনীয় ওষুধ ব্যবহার করুন।

বাতের ব্যথা বাড়ে: শীতে শরীরের বিভিন্ন গাঁটে রক্ত সরবরাহ কমে যায়। এতে বাতের ব্যথা বাড়ে। তাই শীতে নিয়মিত শরীর চর্চা করুন।

হার্ট অ্যাটার্কের ঝুঁকি বাড়ে: শীতে রক্তচাপ বাড়ে। এতে হার্টের পেশির কর্মদক্ষতা কমে গিয়ে হঠাৎ হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি হয়। তাই শীতে নিজেকে গরম রাখতে পর্যাপ্ত শীত পোশাক পরুন।

শীতকালীন ডায়রিয়া থেকে বাঁচুন: শীতে ভাইরাস ঘটিত ডায়ারিয়া থেকে বাঁচতে বাসি, পচা ও অস্বাস্থ্যকর খোলা খাবার এড়িয়ে চলুন।

শুষ্ক ত্বক থেকে বাঁচুন: শীতে আর্দ্রতা কমে যায়। তাই ত্বকের বিভিন্ন সমস্যা থেকে বাঁচতে গোসলের পর মশ্চরাইজার ব্যবহার করুন। বেশি করে ভিটামিনযুক্ত সতেজ শাক সবজি খান।

শীতে ফ্লু থেকে বাঁচুন: ফ্লু ঘটিত ঠাণ্ডা, জ্বর, কাশি শীতের প্রচলিত স্বাস্থ্য সমস্যা। তাই মুখে রুমাল দিয়ে হাঁচি-কাশি দিন। কিছুক্ষণ পর পর সাবান দিয়ে হাত ধোন।

এছাড়া ব্যক্তিগত পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা মেনে চলুন। বেশি করে ভিটামিন সি জাতীয় খাবার খান। সুস্থভাবে শীত উপভোগ করুন।









Leave a reply